পশ্চিমবঙ্গশিরোনাম এই মুহূর্তে

লকডাউনে ব্যবসায় ভাঁটা, মেয়ের বিয়ে ও সংসার চালানোর দুশ্চিন্তায় “স্বেচ্ছায় নিরুদ্দেশ” স্টেশনারি দোকান মালিক –

সংবাদ ভাস্কর নিউস ডেস্ক : করোনা আবহের মধ্যে গত কয়েক মাসের লকডাউনে ব্যবসায় আর্থিক মন্দা। সংসার চালানোর দুশ্চিন্তায় স্বেচ্ছায় নিরুদ্দেশ হলেন দক্ষিণ 24 পরগনা বিষ্ণুপুর থানা এলাকার পরাশরের বছর 44 এর স্টেশনারি দোকানের মালিক। মঙ্গলবার সকালে বাজার করতে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে আর বাড়ি ফেরেননি তিনি, দাবি পরিবারের। অবশেষে বিষ্ণুপুর থানায় নিখোঁজের ডায়েরি করলেন ছেলে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ওই ব্যক্তি বিষ্ণুপুর থানা এলাকার পরাশরের বাসিন্দা মান্নান মোল্লা (44)। স্থানীয় মধ্য নহাজারি এলাকায় রাস্তার ধারে একটি স্টেশনারি দোকান চালাতেন তিনি। মঙ্গলবার সকালে বাড়ি থেকে বেরিয়ে নিরুদ্দেশ হয়ে যান মান্নান বাবু।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, বছর তিনেক আগে বড় মেয়ের বিয়ে দেন তিনি। বর্তমানে মান্নান বাবুর সংসারে স্ত্রী এক উচ্চমাধ্যমিক পাস বিবাহযোগ্যা মেয়ে, এক সদ্য উচ্চ মাধ্যমিক পাস ছেলে এবং আরো এক ক্লাস টেনের নাবালিকা মেয়ে। আগে স্থানীয় এক ব্যক্তির দোকান ভাড়া নিয়ে স্টেশনারি দোকান চালাতেন। বছর দুয়েক আগে জায়গা কিনে নিজেই দোকান করেন তিনি। সংসারে তিনি একা রোজগারে হলেও এই দোকান থেকে উপার্জনের টাকাতেই ভালোভাবেই চলে যাচ্ছিল তাদের পাঁচ জনের সংসার। কিন্তু, গত কয়েক মাসের লকডাউনের কারণে দোকানে কমে গিয়েছিল বেচাকেনা। এদিকে, সংসার চালানো ও বিবাহযোগ্যা মেয়ের বিয়ের ব্যবস্থা এবং আরো দুই সন্তানের পড়াশোনার খরচ কিভাবে চালানো যাবে? ইদানিং তা নিয়ে দিনরাত দুশ্চিন্তায় মনমরা হয়ে থাকতেন মান্নান বাবু। প্রতিদিনের মঙ্গলবার সকালেও বাজার করতে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে আর বাড়ি ফেরেননি তিনি। তিনি ফোন ব্যবহার করলেও এ দিন ফোন বাড়িতে রেখে বেরিয়ে ছিলেন তিনি। রাত পর্যন্ত বাড়ি না ফেরায় বহু আত্মীয়-পরিজনের কাছে মান্নান বাবুর খোঁজ চালানো হলেও কোনো সন্ধান মেলেনি, বলে দাবি তার পরিবারের। তাই, বুধবার দুপুরে বিষ্ণুপুর থানা মান্নান বাবুর নিখোঁজের ডায়েরি করেন তার ছেলে।

লকডাউনে আর্থিক দুরাবস্থায় ডিপ্রেশনে ভুগে নিরুপায় হয়ে স্বেচ্ছায় নিরুদ্দেশ হয়েছেন বাবা, এমনটাই অনুমান ছেলে রোহান মোল্লার। এবার কিভাবে চলবে সংসার? সুস্থ অবস্থায় বাড়িতে ফিরে আসুক বাবা, অনুরোধ ছেলে রোহানের।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button