-Advertisement-

বিজেপি বিধায়কের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার, অভিযোগ খুনের –

পশ্চিমবঙ্গ শিরোনাম এই মুহূর্তে

বিশেষ প্রতিবেদনঃ সোমবার সাতসকালে চায়ের দোকান থেকে বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়ের হাত বাঁধা ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। রায়গঞ্জের বিন্দোল পঞ্চায়েতের বালিয়া গ্রামে তাঁর আদি বাড়ি থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরে রাস্তার ধারে অবস্থিত ওই চায়ের দোকানটি। পরিবারের দাবি, খুন করা হয়েছে বিধায়ককে। ঘটনায় সিবিআই তদন্তের দাবিও জানিয়েছেন তাঁরা।
রবিবার সন্ধেয় বিন্দোলের বালিয়ার আদি বাড়িতে ফিরেছিলেন। পরিবারের দাবি, রাত একটা নাগাদ বেশ কয়েকজন যুবক তাঁকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। তারপর রাতভর তাঁর আর কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি। সোমবার সাতসকালে খোঁজাখুঁজি করতে করতে বালিয়া গ্রামে বিধায়কের আদি বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে পৌঁছন স্থানীয়রা। বন্ধ চায়ের দোকানের সামনে বিধায়কের হাত বাঁধা অবস্থা ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হয়। খবর দেওয়া হয় পুলিশে।

-Advertisement-

তড়িঘড়ি ঘটনাস্থলে পৌঁছন পুলিশকর্মীরা। দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে। যদিও খুন নাকি আত্মহত্যা সে বিষয়ে এখনও নিশ্চিত হতে পারছে না পুলিশ। আপাতত ময়নাতদন্ত রিপোর্ট হাতে আসার অপেক্ষায় পুলিশকর্মীরা।
বিধায়কের স্ত্রী তথা প্রাক্তন পঞ্চায়েত প্রধান চাঁদিমা রায়ের অভিযোগ, পরিকল্পিতভাবে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে দেবেন্দ্রনাথ রায়কে। মৃত্যুর প্রকৃত তদন্তের দাবি জানিয়েছেন রায়গঞ্জের সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরি। তিনি বলেন,”দেবেনবাবুর মৃত্যু যথেষ্ট সন্দেহজনক। একজন মানুষ হাত বাঁধা অবস্থায় কখনই আত্মহত্যা করতে পারেন না। সকলেই সন্দেহ করছে। পুলিশ সঠিক তদন্ত করে মৃত্যুর কারণ বের করুন।”
রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব যদিও খুনের নেপথ্যে স্থানীয় তৃণমূল যুব নেতার যোগসাজশ রয়েছে বলেই অভিযোগ করছে। এ প্রসঙ্গে টুইটে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে ক্ষোভ উগরে দেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা। তিনি লেখেন, “পশ্চিমবঙ্গে গুন্ডারাজ চলছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় ব্যর্থ। এই সরকারকে ভবিষ্যতে ক্ষমা করবে না মানুষ।”

Share this page:

Leave a Reply

Your email address will not be published.

-Advertisement-