-Advertisement-

“বাংলার পর ওদেরকে দিল্লি থেকে তাড়াবো” – মমতা

পশ্চিমবঙ্গ মেদিনীপুর সাধারণ খবর

সংবাদ ভাস্কর নিউজ ডেস্ক : আজ মুখ্যমন্ত্রী পশ্চিম মেদিনীপুরের গড়বেতা , কেশিয়াড়ি এবং কলাইকুণ্ডা , এই তিনটি জায়গায় সভা করেন । সর্বশেষ সভা করেন কলাইকুণ্ডায় । সেখান থেকে তিনি বিজেপিকে বহিরাগত তত্ত্ব তুলে চাঁচাছোলা ভাষায় আক্রমণ করেন ।

-Advertisement-

সেখান থেকে তিনি বলেন ,  ‘‘বাংলায় জিতলেই দিল্লিতে ঝাঁপাব । দিল্লিছাড়া করে ছাড়ব ।’’ অতএব তার মাথায় যে দিল্লি দখলের পরিকল্পনা ঘুরছে সেটা তার কথাতেই পরিষ্কার । সম্প্রতি ঘটে যাওয়া কলেজ স্ট্রিটের কফি হাউসের ঘটনা নিয়ে বলেন , ‘‘মান্না দে যে কফিহাউস নিয়ে গান গেয়েছেন , সেই কফিহাউসেও গুন্ডাগুলো বসে রয়েছে । কফিহাউসে যে ছেলেটির ছবি সামনে এসেছে , সে বহিরাগত গুন্ডা । কফি হাউস দখল করতে গিয়েছিল । ওরা জানে কফি হাউসে কারা যায় ?’’

মমতা ব্যানার্জীর আরও কিছু তাৎপর্যপূর্ণ বক্তব্যের নমুনা নিচে দেওয়া হলো –

-Advertisement-

পায়ে চোট লেগেছে । যত কষ্টই হোক না কেন বিজেপি-কে বাংলা দখল করতে দেব না ।

-Advertisement-

এই যুদ্ধে জিততে হবে , তার জন্য লড়াই করে যেতে হবে ।

চাষিদের কাছ থেকে ৩১ টাকায় চাল কিনে মানুষকে ২ টাকায় দিতাম । এখন এক পয়সাও দিতে হয় না । খাদ্যসাথীতে এখন বিনামূল্যে রেশন পাচ্ছেন । তৃণমূলকে ভোট দিন , আগামী দিনে বাড়িতে রেশন পৌঁছে দেব । দুয়ারে সরকার দুয়ারে রেশন পৌঁছে দেবে ।

মেয়েরা অনেক ক্ষেত্রেই হাত খরচ পান না । তাঁদের জন্য বছরে ৬ হাজার টাকার ব্যবস্থা করছি আমরা । মাসে ৫০০ টাকা করে পাবেন ।

আমাদের সরকার এলে আগামী দিনে ১০ লক্ষ টাকার ক্রেডিট কার্ড ও ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট করে দেব । ৪ শতাংশ সুদে ক্রেডিট কার্ড । সেখান থেকে মেডিক্যাল কলেজ এবং ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ফি দেওয়া যাবে । নিজেদের পড়াশোনার খরচ নিজেরাই চালাতে পারবেন পড়ুয়ারা ।

১৮ বছর বয়স থেকে বিধবারা মাসে ১ হাজার টাকা করে পাবেন । বিনা পয়সায় খাবার পাবেন, চিকিৎসার খরচ পাবেন ।

এখানে জুন মালিয়া আমাদের প্রার্থী । খুব ভাল মেয়ে । বর্ধিষ্ণু পরিবারের মেয়ে । মনে রাখবেন , যদি আসে জুন , মনে আসবে ফাগুন । সামনেই দোল যে !

মেদিনীপুরের কত ছেলেমেয়ে আটকে ছিল লকডাউনে । আমি মুম্বইয়ে টাকা পাঠিয়েছি । রাজস্থানে বাস পাঠিয়েছি । সকলকে নিয়ে এসেছি । আপনারা দেখেছেন বাচ্চাকে বাক্সে শুইয়ে টেনে নিয়ে যাচ্ছেন মা । এদের কোনও মায়া-দয়া নেই । এরা স্বৈরাচারী , দুরাচারী , রাবণের দল । এরা শুধু গিলতে এসেছে । মুখে হরি হরি আর পিছনে চুরি করি , এই হল বিজেপি ।

যদি আপনারা চান আমি থাকি , তাহলে কে দাঁড়াচ্ছে সে কথা বড় কথা নয় , এঁরা জিতলেই আমি ভোটটা পাব । যে সুযোগ সুবিধা পাচ্ছেন সব পাবেন । আমাকে চাইলে ভোটটা দয়া করে তৃণমূলে দেবেন । জোড়াফুলে ভোট দিন । সকাল সকাল ভোট দিন । নিজের ভোট নিজের ভোট দিন । বিজেপিকে বিদায় দিন । খেলা হবে , দেখা হবে , জেতাও হবে । পা ভাল হয়ে গেলে দু’পায়ে হেঁটে এসে আপনাদের প্রণাম জানিয়ে যাব ।

Share this page:

Leave a Reply

Your email address will not be published.

-Advertisement-