কার্দেশিয়ান হওয়ার চেষ্টায় কি কান্ড ঘটালেন সুপার মডেল

বিনোদন

প্রিয়াঙ্কা আইচ ভৌমিক, সংবাদ ভাস্কর বিনোদন ডেস্ক : এ যেন “পুনঃ মুষিক ভব”! ছিলেন জেনিফার, হলেন কার্দেশিয়ান। ১২ বছর ধরে ৪০ কসমেটিক সার্জারি। লক্ষ্য ছিল আমেরিকান রিয়েলিটি স্টার কিম কার্দেশিয়ানের মত দেখতে হবেন। মনের ইচ্ছা পূরণ হলেও আসল মজাটা শিরায় শিরায় আক্ষরিক অর্থেই টের পেলেন ২৯ বছরে এসে।

-Advertisement-

বুঝতে পারলেন এতদিন ধরে যে ড্রিম ফিগার কিংবা ফেসের স্বপ্ন তিনি দেখে এসেছেন তা বাইরে দিয়ে তৃপ্তি দিলেও ভেতর থেকে ক্রমশই শেষ করে দিচ্ছে তাঁকে। জেনিফার প্যম্পলোনার পলায় এখন আক্ষেপের সুর, “জীবনে আমি পড়াশোনা করেছি নিজের ব্যবসা দাঁড় করিয়েছি সাফল্য লাভ করেছি, সবটাই আমার নিজের চেষ্টায় করেছি কিন্তু লোকে এখন আমায় চেনে শুধুমাত্র কার্দেশিয়ানের মত দেখতে বলে।

আমার নিজস্ব পরিচিতি নেই।” ১৭ বছর বয়সে প্রথমবার সার্জারি করান জেনিফার। মুখ গলা চোয়াল থেকে শুরু করে ঠোঁট নাক এমন কি চোখ পর্যন্ত সার্জারি করে ফেলেছিলেন তিনি। খরচা করেছিলেন ৬০০ হাজার ডলার।

-Advertisement-

ভারতীয় মুদ্রায় হিসাব করলে দাঁড়ায় প্রায় ৪ কোটি ৭৭ লক্ষ্ টাকা। ইনস্টাগ্রাম কিংবা সোশ্যাল মিডিয়ার যে কোন সাইটেই তার ফলোয়ার সংখ্যা নেহাত কম নয়। সবাই কিম কার্দেশিয়ান লুক অ্যলাইক গার্ল কে দেখতে চায়।

-Advertisement-

এদিকে ক্রমশ নিজস্বতা হারিয়ে অবসাদে পড়েন জেনিফার। অগত্যা নিজের পুরনো চেহারা ফিরে পেতে উদ্যোগী হন তিনি। ইস্তানবুলের এক ফিজিশিয়ানের সঙ্গে আলাপ হয় ব্রাজিলীয় মডেল জেনিফারের। এরপর চলে ডিট্রানজেশন এর কাজ। ১২০ হাজার ডলার খরচ হয়ে যায় পুনরূপে ফিরতে।

ভারতীয় মুদ্রায় যার অর্থ মূল্য প্রায় ৯৫ লাখ ৫০ হাজার। ক্রিয়া চলাকালীন বেশকিছু সমস্যার মুখে ও পড়তে হয়েছে তাকে। যেমন মুখের সার্জারির পর তিনদিন ধরে চোয়াল বেয়ে রক্ত পড়েছে। জেনিফার বুঝেছেন কসমেটিক সার্জারি করার নেশা কতটা মারাত্মক। এখন তিনি নিজস্ব সংস্থা চালু করেছেন যেখানে যেসব ব্যক্তিরা নিজের চেহারা নিয়ে সন্তুষ্ট নন এবং সার্জারি করতে চান তাদের সাহায্য করেন।

জেনিফার তাদের বোঝান প্রত্যেক মানুষ নিজের মত সুন্দর কেউ পারফেক্ট নয়। এটাই প্রত্যেককে প্রত্যেকের থেকে আলাদা করে।

Share this page:

Leave a Reply

Your email address will not be published.

-Advertisement-