-Advertisement-

দেবযানীর মায়ের বিস্ফোরক চিঠি সিবিআই এর হাতে

এক নজরে

সংবাদ ভাস্কর ডিজিটাল ডেস্ক : রাজ্য পুলিশ যে তৃণমূল কংগ্রের হয়ে উলঙ্গ হয়ে কাজ করছে আবার তার প্রমান পাওয়া গেল রাজ্য পুলিশের সি আই ডি ডিপার্টমেন্টের অফিসারদের আচরনে। প্রসঙ্গতঃ উল্লেখ্য বর্তমানে কয়লা পাচার, বালি পাচার, গরু পাচার, তোলাবাজী; শিক্ষক নিয়োগ, স্বাস্থ্য দপ্তরে নিয়োগ, দমকলে নিয়োগ নিয়ে একের পর এক সিবিআই, ইডি তদন্তে নাজেহাল তৃণমূল দল ও সরকার। ইতিমধ্যেই মন্ত্রীসভার দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী, দলের মহাসচিব জেলে।

-Advertisement-

জেলে আছেন বীরভূম জেলার দলীয় সভাপতি। সিবিআই রেড হচ্ছে আইনমন্ত্রীর বাড়ীতে, ইডি বারবার তলব করছে তাকে। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার নজরে আরও অনেক নেতা মন্ত্রী। ভীত নেতারা অসহায় প্রতিআক্রমনের চেষ্টা চালিয়ে নিজেদের অন্যায়কে জাস্টিফাই করে যাচ্চেন। সন্দেহের আবহে মানুষ ধীরে ধীরে বিশ্বাস করতে শুরু করেছেন এই সরকার ও দল প্রকৃতই দুর্নীতিগ্রস্থ। তাই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও বেছে নিতে চাইছেন প্রতিআক্রমনপর পথ।

তিনি বলছেন,” আমরা সবাই চোর আর বাকী সবাই সাধু?” আমার কাছেও ফাইল আছে, খুলে দেবো। বিরোধী বামেদের পাল্টা চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে অবশ্য তিনি বলে ফেললেন বাম আমলের কোন আলমারি, কোন ফাইল খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না, যার ফলে তাঁর আচরণ মানুষের কাছে হাস্যস্পদ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। ইতিমধ্যে শুধু বর্তমান কেলেঙ্কারীই নয়, নাড়াঘাঁটা শুরু হয়েছে পুরোন সারদা ও নারদা কেলেঙ্কারি নিয়েও। মুখ্যমন্ত্রী হুমকি দিয়েই রেখেছিলেন বিজেপি চক্রান্ত করছে।

-Advertisement-

“ওদের সিবিআই, ইডি থাকলে আমাদেরও সিআইডি আছে। বিরোধীদের বক্তব্য মুখ্যমন্ত্রী রাজ্য পুলিশের সাহায্যে সন্ত্রাস তৈরী করে ভোটে জিতছেন, স্বৈরতান্ত্রিক কায়দায় গণতান্ত্রিক আন্দোলনের উপর নির্যাতন নামিয়ে আনছেন, মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে বিরোধীদের জেলবন্দী করছেন। সেই কৌশলের অঙ্গ হিসাবেই বোধহয় সিআইডি কে এইভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

-Advertisement-

সিআইডি’র মুখোশ এবার খুলে গেল যখন সিবিআই কে চিঠি দিলেন সারদা মামলায় দীর্ঘদিন জেলবন্দী থাকা দেবযানী মুখোপাধ্যায়ের মা শর্বরী মুখোপাধ্যায়। তাঁর অভিযোগ গত ২৩ শে আগষ্ট জেলে গিয়ে তার মেয়েকে অর্থাৎ দেবযানীকে প্রচন্ড মানসিক চাপ দিচ্ছেন সিআইডি’র অফিসারেরা। তাকে এরকম বয়ান দিতে বলা হচ্ছে যে, সিপিআই (এম) নেতা সুজন চক্রবর্তী ও পূর্বতন তৃণমূল, বর্তমানে বিজেপি নেতা তথা বিধানসভার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী তার সামনেই সুদীপ্ত সেনের কাছে ৬ কোটি টাকা করে নিয়েছেন।

এরকম বয়ান না দিলে দেবযানীকে আরও ৯ টি মামলায় ফাঁসিয়ে দেবার হুমকি দেন সিআইডি অফিসারেরা। এবিষয়ে অবশ্য এখনো সিআইডি’র কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। তবে এবিষয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন সুজন চক্রবর্তী। তাঁর বক্তব্য, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে সিআইডিকে কাজে লাগাচ্ছে মমতার সরকার।

Share this page:

Leave a Reply

Your email address will not be published.

-Advertisement-